স্কুল-কলেজের বাংলা দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্নে ‘পত্র লিখন’ রাখা হয়েছে। ব্যক্তিগত, দাপ্তরিকসহ নানা কাজে পত্র বা চিঠি লেখার দরকার হয়। চিঠি লেখার কিছু টেকনিক আছে। ভালো নম্বর তুলতে হলে কায়দা-কানুন মেনে গুছিয়ে লিখতে হবে। আরো জানাচ্ছেন মো. আব্দুস সাত্তার

* কোন প্রসঙ্গে কাকে উদ্দেশ্য করে লিখছেন, তার ওপর চিঠির কাঠামো নির্ভর করে। ব্যক্তিগত আর প্রাতিষ্ঠানিক/ব্যবসায়িক চিঠির মধ্যে তফাত আছে।

তাই এসব ক্ষেত্রে ভাষাও ভিন্ন ভিন্ন হবে।

* কোনো বিষয়ে অবহিত করতেই চিঠি লেখা হয়। তাই এর বক্তব্য যেন অস্পষ্ট না হয়। চিঠিতে কাটাকাটি না করে স্পষ্ট অক্ষরে গুছিয়ে বক্তব্য ধারাবাহিকভাবে লিখতে হবে।

* ভাষা ব্যবহারে খেয়াল রাখতে হবে যেন এমন কোনো বাক্য ব্যবহার না হয়, যা একাধিক বা ভিন্ন অর্থ প্রকাশ করে।

* পরীক্ষার উত্তরপত্রে নির্ভুল বানান, উপযুক্ত শব্দ ও চিঠি লেখার কাঠামোর ওপর নির্ভর করে শিক্ষার্থী কত নম্বর পাবে।

* ব্যক্তিগত চিঠিতে নিজের অভিজ্ঞতা, অনুভূতি, ব্যক্তিত্বের ছাপ থাকতে হবে।

* বই থেকে চিঠির নমুনা দেখে হুবহু মুখস্থ না করে নিজের মতো করে লিখতে হবে।

* চিঠির মূলত দুটি অংশ—শিরোনাম, পত্রগর্ভ।

* চিঠির খামের ওপর বাঁ দিকে প্রেরকের ঠিকানা ও ডানদিকে প্রাপকের ঠিকানা লিখতে হয়।

* পত্রগর্ভ হচ্ছে চিঠির ভেতরের অংশ।

* ব্যক্তিগত চিঠির কাঠামোতে ছয়টি অংশ থাকে—

১. মঙ্গলসূচক শব্দ

২. স্থান ও তারিখ

৩. সম্ব্বোধন

৪. মূল বক্তব্য

৫. পত্র লেখকের নাম/স্বাক্ষর

৬. শিরোনাম

এর মধ্যে ১-৫ ক্রম হচ্ছে পত্রগর্ভ।

আপনার ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করে মতামত প্রদান করতে পারেনঃ